1. Saifuddin8600@gmail.com : S.M Saifuddin Salehi : S.M Saifuddin Salehi
  2. Journalistmmhsarkar24@gmail.com : Md: Mahidul Hassan Mahi : Md: Mahidul Hassan Mahi
  3. rajuahamad717@gmail.com : Md Raju Ahamed : Md Raju Ahamed
  4. rakibulpress51@gmail.com : Rakibul Hasan : Rakibul Hasan
  5. rajruhul@gmail.com : মোঃ রুহুল আমীন : মোঃ রুহুল আমীন
  6. prosajjad@gmail.com : Sazedur Rahman Sajjad : Sazedur Rahman Sajjad
  7. shorifulshorif01@gmail.com : Md shoriful Islam Shorif : Md shoriful Islam Shorif
  8. dailyatrai@gmail.com : Md Rasel Kobir : Md Rasel Kobir
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০৪:৩১ অপরাহ্ন
add

বিনম্র শ্রদ্ধা….

দৈনিক আত্রাই রির্পোটার
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৬ আগস্ট, ২০২০
  • ৯৫ বার পড়া হয়েছে

নাটোরের চক্ষু চিকিৎসায় পথ প্রদর্শক ডাঃ আবুল হোসেন
‘যারে নিজে তুমি ভাসিয়ে ছিলে দুঃখ ধারার ভরা স্রোতে
তারে ডাক দিলে আজ কোন খেয়ালে আবার
তোমার ও পার হতে।’
-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
কালের যাত্রা বহমান গতিতে এগিয়ে চলেছে নিরবধি। সময়ের সাহসী সন্তানেরা পাষাণের বক্ষে আপনকর্মের আলোক প্রজ্বলিত ফলায় খোদাই করে স্মৃতি চিহ্ন রেখে অমরলোকে যাত্রা করে। রেখে যাওয়া কিছু কর্ম কিছু স্মৃতি দর্পণে বার বার ফিরে আসে। ক্ষণিকের পথচলার স্বর্ণালী চিহ্নগুলো প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের পথচলার উজ্জ্বল দিক নির্দেশনা হয়ে থাকে। মহৎ এর আশা আর অমরত্ব যুগ ও কালের অক্ষয় দলিল। স্বার্থপর সমাজ ব্যবস্থায় লালিত বাসনায় আপন বলয়ের গতি অতিক্রম করা মানুষ বিরল। কিছু মানুষ নিজ বাসনাকে পেছনে ফেলে সমাজহিতকর কর্মে আত্মনিয়োগ করে আলোক পথের দিশারী হয়ে নিজ বাসনার উর্ধ্বে মানবপ্রেমকে তুলে ধরে। তেমনি সততা, সংগ্রাম বিশ্বাস আর মেধার অপূর্ব মিশ্রনে গড়ে ওঠা কুসুমিত ইস্পাত চরিত্রের এক সমাজ হিতৈষী খ্যাতিমান, নির্ভিক, সৎ, সংগ্রামী, আপোষহীন, বিরল প্রতিভার অধিকারী ছিলেন প্রখ্যাত চক্ষু চিকিৎসক ডাঃ আবুল হোসেন । পেশাগত জীবনে চক্ষু চিকিৎসক হলেও তিনি সাহিত্য, রাজনীতি, ধর্মতত্ত্ব, দর্শণ, মনোবিজ্ঞানসহ জ্ঞান-বিজ্ঞানের সকল ক্ষেত্রেই বিচরণ করতে আনন্দ পেতেন।
নাটোরের প্রথম চক্ষু চিকিৎসক
কিংবদন্তির ডাঃ আবুল হোসেন। জনদরদী ও মানবিক চিকিৎসক হিসেবে যিনি নাটোরের মানুষের কাছে স্মরণীয় বরণীয় আছেন। আম জনতার কাছে তিনি গরীবের ডাক্তার বলে পরিচিত ছিলেন। ডাঃ আবুল হোসেনের চক্ষু চিকিৎসার খ্যাতি শুধু নাটোরেই নয় পুরো উত্তরাঞ্চল জুড়ে ছড়িয়ে আছে। ১৯৩১ সালর ১ লা জুলাই চাপাই নবাবগঞ্জের ভোলাহাটে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। বাল্যজীবন কেটেছে শ্যামল সবুজে ঘেরা প্রত্যন্ত সেই অঞ্চলে। ছবির সাথে মনে স্মৃতি….

পঞ্চাশ দশকের মাঝামাঝি সময়ে ডাঃ মোঃ আবুল হোসেন রাজশাহী মেডিকেল স্কুলে পড়ালেখা শেষ করেন । পরবর্তীতে ‘এলএমএফ’ শেষ করে তিনি সরকারী চাকুরীতে যোগদান করেন। আর ষাটের দশকের মাঝামাঝি চাকুরী বাদ দিয়ে তিনি জোহা ক্লিনিক নামে নাটোরে নিজস্ব ক্লিনিক দিয়ে প্রাইভেট প্রাকটিস শুরু করেন। নাটোর শহরের প্রাণকেন্দ্র নিচাবাজারে জনতা স্টোরের পার্শ্বে ছিল ‘জোহা ক্লিনিক “।। কম সময়ে চক্ষু চিকিৎসক হিসেবে ডাঃ আবুল হোসেনের নাম রাজশাহী,নাটোর,নওগাঁ জেলায় ছড়িয়ে পরে।
পরবর্তীতে তিনি এমবিবিএস পাশ করার পর জেনারেল প্র্যাকটিস ছেড়ে দীর্ঘ সময় ঢাকা ও খুলনায় বাংলাদেশ জাতীয় অন্ধ কল্যাণ সমিতির চক্ষু হাসপাতালে চক্ষু চিকিৎসক ও সার্জন হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন । আবার নাটোর ফিরে এসে আসেন তিনি। সত্তরের দশকের শেষ ভাগে তিনি শহরের চকরামপুরে নিজস্ব জায়গায় গড়ে তুলেন “জোহা ক্লিনিক “। তারপর আমৃত্য গরীবের হাজার হাজার মানুষের চোখের আলো ফিরিয়ে দিয়েছেন। ফ্রি চিকিৎসা সেবার পাশাপাশি বিনামূল্যে মেডিসিন দিয়েছেন শত শত মানুষকে । তিনি কখনো টাকার দিকে তাকাননি। চিকিৎসা কে তিনি কখনো ব্যবসা হিসেবে নেননি। আজীবন মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছিলেন। চিকিৎসা যে একটি মহান পেশা এবং সেবামূলক কাজ তা তিনি বারংবার প্রমাণ করেছেন।।। নাটোরের একজন খ্যাতিমান চক্ষু চিকিৎসক হিসেবে আমৃত্যু তিনি নাটোরের মানুষের চক্ষু সেবা দিয়ে গেছেন। পাশাপাশি নাটোরের বিভিন্ন শিক্ষা, সামাজিক,সাংস্কৃতিক, ক্রীড়া এবং ধর্মীয় কাজে নিজেকে নিবেদিত রেখেছিলেন।

সাধারণ মানুষ যতক্ষণ ভালো লাগে ততক্ষণ কাজ করে আর অসাধারণ সফল মানুষরা ভালো না লাগলেও যতক্ষণ না কাজ শেষ হয় ততক্ষণ কাজ বন্ধ করে না।”
সেই রকম কাজ বন্ধ না করে সকলকে কাঁদিয়ে ২০০১ সালে ডাঃ আবুল হোসেনের পদাঙ্ক অনুসরণ করে তাঁরই সুযোগ্য সন্তান শ্রদ্ধেয় ডাঃ আসাদ ভাই চক্ষু চিকিৎসক হিসেবে নাটোর সহ আশে পাশের কয়েকটি জেলার মানুষের কাছে খ্যাতি লাভ করেছেন ।। এখন সেটা আর জোহা ক্লিনিক নয় আবুল হোসেন চক্ষু হাসপাতাল। আধুনিক যন্ত্রপাতির সাহায্যে যেখানে চোখের সব ধরণের চিকিৎসা করা হয়। বাবার মতো তিনিও অনেক মহৎ প্রাণ মানুষ। ভালো চিকিৎসক। এখন প্রতিদিনই ডাঃ আসাদের চেম্বারে রোগিদের উপচে পরা ভীড় দেখা যায়। গরীবের ডাক্তার আবুল হোসেনের চিকিৎসা ক্ষেত্রে সেবা নেননি আমার মনে হয় নাটোরে সিনিয়র সিটিজেনদের মধ্যে এমন কেউ নেই।। বিনা ফিতে চিকিৎসা দিতেন অসংখ্য মানুষকে। গরিবের সেবক হিসেবে আমাদের পরম পূজনীয়
আমার প্রয়াত বাবা মায়ের খুব পছন্দের চিকিৎসক ছিলেন প্রিয় চাচা শ্রদ্ধাভাজন ডাক্তার আবুল হোসেন। আমাদের পরিবারে কারো চোখে কিছু হলেই ছুটে যেতেন প্রিয় চাচার কাছে। জীবনে কোন দিন ফি দিতে পারেনি আমাদের পরিবারের কোনো সদস্য। খুব আদর করতেন আমাকে। আজ তিনি নেই ওপারে ঘুমান শান্তিতে, আপনার জন্য দোয়া অবিরাম । আল্লাহ আপনি গরীবের ডাক্তার পরম শ্রদ্ধেয় আবুল হোসেন কে জান্নাত নসিব করুন।
আমি নিশ্চিত আপনার সুচিকিৎসা প্রাপ্ত লাখো মানুষের দোয়ায় আল্লাহ আপনাকে বেহেস্ত নসীব করবেন। আমিন।

দৈনিক আত্রাই/এস.আর

add

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও খবর...
add
add

Prayer Time Table

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:০৬
  • ১২:১৪
  • ৪:৪৯
  • ৬:৫৭
  • ৮:২০
  • ৫:২৮
© স্বর্বস্বত্ব সংরক্ষিত /দৈনিক আত্রাই এই ওয়েবসাইটের লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
কারিগরি সহযোগিতায়: মোস্তাকিম জনি