1. Saifuddin8600@gmail.com : S.M Saifuddin Salehi : S.M Saifuddin Salehi
  2. Journalistmmhsarkar24@gmail.com : Md: Mahidul Hassan Mahi : Md: Mahidul Hassan Mahi
  3. rajuahamad717@gmail.com : Md Raju Ahamed : Md Raju Ahamed
  4. rakibulpress51@gmail.com : Rakibul Hasan : Rakibul Hasan
  5. rajruhul@gmail.com : মোঃ রুহুল আমীন : মোঃ রুহুল আমীন
  6. prosajjad@gmail.com : Sazedur Rahman Sajjad : Sazedur Rahman Sajjad
  7. shorifulshorif01@gmail.com : Md shoriful Islam Shorif : Md shoriful Islam Shorif
  8. dailyatrai@gmail.com : Md Rasel Kobir : Md Rasel Kobir
শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০৮:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
গ্রামবাসীর ব্যাতিক্রম ঈদ উদযাপন বিলুপ্ত প্রায় গ্রামীণ খেলাধুলার আয়োজন শিক্ষানবীস আইনজীবিকে কুপিয়ে জখম দেশবাসীকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাংবাদিক মাহিদুল হাসান মাহি! হিল কিনে না দেওয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে কিশোরীর আত্মহত্যা সাংবাদিকরা সমাজের দর্পণ…………এমপি হেলাল অসহায় আসলামের পাশে দাড়ালেন আহম্মদ আলী মোল্লা ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের ৩য় বর্ষের শিক্ষর্থী সাব্বির সরকার এর ঈদ সামগ্রী বিতরন নাটোরে ৩‌১টি শ্রমিক সংগঠনের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান ঈদের আগে ঈদ আনন্দে পথশিশুরা,পেল নতুন পিরান রাণীনগরে আনন্দ ভাগাভাগি করতে সিএনজি শ্রমিকদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ
add

ল্যাংড়া হারুনের নির্মম তামাশা এবং অবশেষে এক পাওনাদারদের মৃত্যু

বিশেষ প্রতিনিধি, ঢাকা।
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২১ অক্টোবর, ২০২০
  • ১০৪ বার পড়া হয়েছে

গুলিস্তান পাতাল মার্কেট সংলগ্ন রাজধানী হোটেলের পাশের দেয়ালে ব্যাগ ঝুলিয়ে বানানো হয়েছে একটি অস্থায়ী ব্যাগের দোকান। তবে সবসময় এই দোকান দেখা যায়না। কখনো দুপুরে কখনো রাতে এই দোকান বসে আবার কোনদিন দোকানের নাম চিন্হই দেখা যায়না।বছরের পর বছর ধরে এভাবেই অস্থায়ী ব্যাগের দোকান খুলে ক্ষুদে কারখানাদারের নিকট থেকে নগদের নাম করে বাঁকিতে মাল ক্রয় করে থাকে এই দোকানের মালিক হারুন। এক পায়ে খুঁড়িয়ে হাটে বলে তাকে ল্যাংড়া হারুন নামেই ডাকা হয়। দেখতে শুকনো এবং খাটো আকৃতির এই লোকটি কখনো মাথায় টুপি ও মুখে দাড়ি রেখে ধর্মের কথা বলে আবার কখনো টুপি ছেড়ে ক্লিন শেভ করে ধর্মবিরোধী কথা বলে। এই ল্যাংড়া হারুনের সাথে ব্যাবসা করা আর নিজের পায়ে কুড়াল মারা একই কথা। ভুক্তভোগীদের দীর্ঘশ্বাসগুলো যেন সেকথারই ইঙ্গিত দেয়। গুলিস্তান ১ নং ইউনিট আওয়ামিলীগ অফিসের পাশে এই হারুনের একটা ক্যান্টিনও রয়েছে। সেই ক্যান্টিনে কখনো তার ছেলে বসে আবার কখনো সে নিজেই বসে। ক্যান্টিনের সমস্ত পুঁজি বিনিয়োগ করা হয়েছে ক্ষুদে ব্যাগ কারখানাদারের পাওনা টাকা আটক করেই। ফলে তার হাতে বলির পাঠা হয়ে গেছে বহু ক্ষুদ্র কারখানাদারগন। কারখানাদারদের বলির পাঠা বানানোর জন্য প্রথমে সে তাদের অল্প টাকার মালের অর্ডার করে থাকে। তারপর কিছুদিন লেনদেন করার পর একটা বড় অংকের টাকার মালের অর্ডার দেয়। আর সেই অর্ডার অনুযায়ী মাল ডেলিভারি দিয়েই বলির পাঠা হয়ে যায় ক্ষুদ্র কারখানাদারগন। পার্টি এলেই শুরু হয় তার নানারকম টালবাহানা। আজকে বৃষ্টি, কালকে বাজারমন্দা, পরশু অসুস্থ, তারপরদিন আত্মীয় মারা গেছে, এরপর হরতাল, বিক্ষোভ এভাবে একের পর এক অজুহাতের তালিকা প্রদান করে পাওনাদারকে বছরের পর বছর হয়রানি করিয়ে তাদের নাভিশ্বাস উঠিয়ে ফেলে সে। গরীব অসহায় ক্ষুদে কারখানাদারগন অসহায়ের মত তার দোকানে এসে পাওনা আদায়ের আশায় তার দিকে চেয়ে থাকেন অথচ তাদের যেন দেখেও দেখেনা এই ল্যাড়া হারুন। পাওনা টাকার জন্য পার্টিরা তাকে ফোন করলেই সে রাজনৈতিক মিটিংয়ে আছে বলে এড়িয়ে যায়।

একজন পাওনাদারের মুমূর্ষ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি থাকাকালীন তার ছেলে হারুনের কাছে এসে পিতা মৃত্যুশয্যায় আছে বলে জানালে তবুও চিকিৎসার জন্য পাওনা পরিশোধ করেনি হারুন। বরং পিতা মরে গেলে সংসারে দৈনিক এককেজি করে চাল বাঁচবে বলে তামাশা করে সে। অত:পর চারদিন পরই সেই পাওনাদারের মৃত্য হয়। পাওনাদের মৃত্যুর পর তার ছেলে পাওনা চাইতে এলে তারপরও টাকা পরিশোধ করেনি হারুন বরং নিজেকে রাজনৈতিক নেতা পরিচয় দিয়ে চাঁদাবাজির মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়ার হুমকি প্রদান করে সে। এভাবে বহু মানুষের টাকা আটকে রেখে বহুবছর যাবৎ নিজেকে রাজনৈতিক নেতা পরিচয় দিয়ে বেশ দাপটের সাথে গুলিস্তানে ব্যাবসার নামে একপ্রকার ডাকাতি করে যাচ্ছে সে। তার ব্যাপারে বিভিন্ন মহলে অভিযোগ করার পরও সে পাওনা পরিশোধ করেনি। বিভিন্ন পাওনাদারগন তার এই কুকর্মের সঠিক বিচারের জন্য জোর দাবী জানাচ্ছে। ইচ্ছেমতো অসহায় ক্ষুদে ব্যাবসায়ী থেকে জোরপূর্বক মাল আটক করে নিজের ইচ্ছেমত রেট বসিয়ে বাঁকিতে মাল ক্রয় করার নামে একপ্রকার ডাকাতি করে থাকে সে। এছাড়া ফুটপাতে বিভিন্ন স্থানে নিজের সেলসম্যান বসিয়ে তাদের মাধ্যমে সাধারন মানুষের নিকট থেকে বাকিতে মাল কিনে সেলসম্যানদের ছাঁটাই করে নিজেই সমস্ত মাল আত্মসাৎ করে সে। এছাড়া দরদামে মিল না হলেই কাস্টমারদের গায়ে হাত তোলার অভিযোগও তার নামে শোনা গেছে।

add

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও খবর...
add
add

Prayer Time Table

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:০১
  • ১২:০৪
  • ৪:৩৮
  • ৬:৪৩
  • ৮:০৬
  • ৫:২২
© স্বর্বস্বত্ব সংরক্ষিত /দৈনিক আত্রাই এই ওয়েবসাইটের লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
কারিগরি সহযোগিতায়: মোস্তাকিম জনি